সেই গানের অজানা গল্প বললেন মাধুরী

‘এক দো তিন’। বলিউডের এই আইকনিক গান দশকের পর দশক ধরে মানুষের হৃদয় হরণ করছে। করোনার লকডাউনের দিনগুলোতে মানুষকে ঘরে পার্টি করার জন্য গানটি ‘প্লে’ করতে বলেছেন ‘মোহিনী’ মাধুরী দীক্ষিত। গানটি ১৯৮৮ সালের ব্লকবাস্টার হিট ছবি ‘তেজাব’–এর। গানটি সম্পর্কে অনেক মজার মজার তথ্যও শেয়ার করেছেন ৫২ বছর বয়সী ‘তরুণী’ মাধুরী।

টুইটারে এ গান সম্পর্কে পদ্মশ্রী মাধুরী ভক্তদের নানা প্রশ্নের উত্তরও দিয়েছেন। গানটি ছেড়ে নাচা শুরুর আগে জেনে নিন এ গান সম্পর্কে মাধুরীর দেওয়া মজার কিছু তথ্য:

১। শুটিংয়ের আগে একটানা ১৫ দিন অলকা ইয়াগনিকের গাওয়া এই গানে নাচের প্র্যাকটিস করেছেন মাধুরী। তাই তো এত সাবলীলভাবে স্টেপগুলো রপ্ত করে নিজে নেচেছেন, আর যুগের পর যুগ ধরে সবাইকে নাচিয়ে আসছেন।

২। সত্যিকারের এক হাজার দর্শকের সামনে মাধুরী নেচেছেন। আর শুটিং চলেছে। গানে আপনি যে আওয়াজ শুনতে পান, সেটি ওই দিনের সেই দর্শকদের।

৩। এই গানের জনপ্রিয়তা বেড়ে হু হু করে আকাশ স্পর্শ করার অবস্থা, তখন এই গানের একটি ‘পুরুষ ভার্সন’বের হলো। যদিও সেটি সেভাবে সাড়া ফেলতে পারেনি।

৪। সিনেমা হলে ‘তেজাব’ চলার সময় পর্দায় এই গান শেষ হওয়ার পর দর্শকদের অনুরোধে আবার এই গান বাজানো হতো। দর্শকেরা নাচানাচি করতেন, পর্দা লক্ষ্য করে টাকা ওড়াতেন। সব সময় এই গানে ‘গোলমাল’ থামাতে সিনেমা চলাকালে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল।

৫। বেশ কিছুদিনের জন্য মাধুরী চাপা পড়ে গিয়েছিলেন মোহিনীর আড়ালে। মোহিনী নন, তিনি মাধুরী—এটি প্রতিষ্ঠা করতে সময় লেগে গিয়েছিল মাধুরীর।

About admin

Check Also

‘আফসোস অনেকে সবকিছু জেনেও নিয়ম ভঙ্গ করছে’

ভয়াল এক সময় পার করছে সারা বিশ্ব। সারা বিশ্বের এখন সবচেয়ে বড় সংকট করোনাভাইরাস। কী …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *